1. admin@asianexpress24.com : admin :
  2. asianexpress2420@gmail.com : shaista Miah : shaista Miah
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০২:৫২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ফুলবাড়ীতে স্বপ্নসিঁড়ি সমাজ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে বিশ্ব রক্তদাতা দিবস পালিত বিশ্বনাথের পশ্চিম অলংকারীতে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর দেড় লক্ষ টাকা সহায়তা প্রদান  উত্তরপ্রদেশে তিনতলা বাড়িতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড: নিহত ৫ জগন্নাথপুরে এসআই মিজানুর ক্লোজড বিশ্বনাথে বাস লেগুনার মুখোমুখি সংর্ঘষে নিহত -২ ড. এ.কে আব্দুল মোমেনের সুস্থতা কামনায় সদর উপজেলা পরিষদের দোয়া মাহফিল লোহাগড়ায় পাটচাষিদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে দৈনিক দেশের কন্ঠের সপ্তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বিশ্বনাথে পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমের অবহিতকরণ সভা অনুষ্টিত ভোলাগঞ্জ ক্ষুদ্র পাথর ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির লিঃ এর নতুন কমিটির নাম প্রকাশ
শিরোনাম
ফুলবাড়ীতে স্বপ্নসিঁড়ি সমাজ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে বিশ্ব রক্তদাতা দিবস পালিত বিশ্বনাথের পশ্চিম অলংকারীতে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর দেড় লক্ষ টাকা সহায়তা প্রদান  উত্তরপ্রদেশে তিনতলা বাড়িতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড: নিহত ৫ জগন্নাথপুরে এসআই মিজানুর ক্লোজড বিশ্বনাথে বাস লেগুনার মুখোমুখি সংর্ঘষে নিহত -২ ড. এ.কে আব্দুল মোমেনের সুস্থতা কামনায় সদর উপজেলা পরিষদের দোয়া মাহফিল লোহাগড়ায় পাটচাষিদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে দৈনিক দেশের কন্ঠের সপ্তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বিশ্বনাথে পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমের অবহিতকরণ সভা অনুষ্টিত ভোলাগঞ্জ ক্ষুদ্র পাথর ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির লিঃ এর নতুন কমিটির নাম প্রকাশ লোহাগড়ায় তিন দিনব্যাপী কৃষি মেলার উদ্ধোধন লোহাগড়ায় মাদকবিরোধী সেমিনার অনুষ্ঠিত কামরানকে গ্রেটার সুনামগঞ্জ কমিউনিটি কাউন্সিল ইউ.কে ইন বেডফোর্ডের সংবর্ধনা ভূরুঙ্গামারীতে মৃত্যুর দেড় মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন লালমনিরহাটের ভূমিহীনদের ঘর প্রদান উপলক্ষে পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রেস ব্রিফিং

ঝালকাঠিতে অনাবৃষ্টিতে পানি সংকট, লোকসানের মুখে ফুড-তরমুজসহ রবিশস্য চাষীরা

  • Update Time : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৫৮ Time View

মোঃ নাঈম হাসান ঈমন ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠিতে অনাবৃষ্টিতে পানি সংকটের কারনে লোকসানের মুখে পড়েছেন ফুড-তরমুজসহ রবি মৌসুমের বিভিন্ন ধরনের রবিশস্য চাষীরা। প্রচন্ড রোদ আর অনাবৃষ্টি এবং খাল বিলে পানি কমে যাওয়ায় ফসলের ক্ষেত ফেটে খা খা করছে। এতে ফুড-তরমুজ (বাঙ্গী) সহ বিভিন্ন ধরনের ফসলের গাছ শুকিয়ে পাতা সবুজ বর্ণ ধারণ করেছে। এসব কারণে আশানুরূপ ফলন পাওয়া সম্ভবন নয় বলে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রমতে, এ উপজেলায় চলতি রবি মৌসুমে ৫ হাজার ৫শ’ হেক্টর জমিতে রবিশস্যের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে শুক্তাগড় ও মঠবাড়ি ইউনিয়নে আবাদ বেশি। সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার একেশরা ও বামনকাঠি এ দুই গ্রামে প্রায় ২৫ বিঘা জমির রবিশস্য পানির অভাবে রোদের তাপে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এতে এলাকার কৃষকরা কয়েক লাখ টাকা লোকসানের মুখে পড়েছেন। বামনকাঠি ও একেশ্বারা গ্রামের শাখাওয়াত ফরাজি, আজিজ হাওলাদার, খলিল হাওলাদার, দেলোয়ার হাওলাদার ও এনামুল হোসেনসহ একাধিক কৃষক বলেন, কৃষি ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, ব্র্যাক,আশা, গ্রামিন ব্যাংক, শক্তি ফাউন্ডেশন ও ক্রোমতসহ বিভিন্ন এনজিও থেকে বিভিন্ন পরিমানে লোন নিয়ে তারা এ বছর ১০ বিঘা জমিতে ফুট (বাঙ্গি), ৪ বিঘা জমিতে সূর্যমুখি, ৪ বিঘা জমিতে তিল, ২ বিঘা জমিতে মুগ ডাল, ১ বিঘা জমিতে ছোলা, ১৫ কাঠা জমিতে ডেঢ়শ (বেন্ডি), ৫ কাঠা জমিতে মরিচের চাষসহ অন্যান্য রবিশস্য চাষ করেছেন। কৃষকরা প্রায় তিন লক্ষাধিক টাকা বিনিয়োগ করেছেন। ঠিকমতো বৃষ্টি হলে ভালো ফলন হলে প্রায় ৫ থেকে ৬ লাখ টাকার ফসল উৎপাদন হতো। কিন্তু এবছর এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত রাজাপুরে কোন বৃষ্টিপাত না হওয়ায় ফসলের গাছ বৃদ্ধি হয়নি। ফুল ও ফল রোদের তাপে ঝরে পড়ে গিয়েছে। ফলন যাহা হয়েছে তাও পুষ্টিকর হয়নি। কাছাকাছি খাল না থাকায় সেচের ব্যবস্থাও করা সম্ভব হয়নি। শেষ সময়ে পানিতে তলিয়ে যাওয়ার ভয়ে মূলত উচু এলাকা নির্বাচন করা হয় ফুড তরমুজসহ রবিশস্যের জন্য। কিন্তু এবার বৃষ্টি না হওয়া এবং আশপাশের নালা শুকিয়ে যাওয়া কাছাকাছি পানি না পাওয়ায় পরিমান মত পানি সেচ দেয়া সম্ভব হয়নি। তাই কাঙ্খিত ফলন উৎপাদন হয়নি। যে ফলন হয়েছে তাতে দেড় থেকে দুই লাখ টাকা পাওয়া যেতে পারে। এ বছর ওই এলাকার কৃষকদের লাখ লাখ টাকা লোকশান গুনতে হবে বলে তারা আরো জানান। লোকসান পুষিয়ে উঠতে ওই এলাকার কৃষকরা সরকারের কাছে বিশেষ প্রণোদনা পাওয়ার দাবি জানিয়েছেন। ওই এলাকার কৃষক সাখাওয়াত ফরাজী বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসের আওতায় কোন প্রদর্শনী ক্ষেত করলে সে বিষয়ে মোটামুটি খোজ খবর নেন কৃষি কর্মকর্তারা। কিন্তু ব্যক্তিগত উদ্যোগে কৃষি চাষ করলে উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কোন যোগাযোগ করেন না। গত বছরে আমার প্রায় ১৩ বিঘা জমির রবিশস্য জোয়ারের পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো কিন্তু কৃষি কর্মকর্তারা একবারও খোজ নেয়নি। এবারেও আমার প্রায় ১৪ বিঘা জমির রবিশস্য রোদের তাপে ক্ষতি হয়েছে। এ পর্যন্ত কোন খোজ খবর নেয়নি উপজেলা কৃষিকর্মকর্তারা। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর বলেন, কৃষকদেরকে ফসলের শত্রæ পোকা নিধন ও প্রয়োজনিয় সেচের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। কিন্তু ওই এলাকায় কাছাকাছি খাল না থাকায় তুলনামুলক ফসল উৎপাদন কম হতে পারে। উপজেলায় সার্বিক দিক থেকে এ বছর আবাদ বেশী হয়েছে এবং গত কয়েক বছরের তুলনা ফলনও ভালো হয়েছে। এ বছর জোয়ারের পানিও দেড়িতে এসেছে। পর্যাপ্ত সেচের অভাবে দু’এক জায়গায় সমস্যা হতে পারে। ক্ষতিগ্রস্থরা স্থানীয় মেম্বর ও চেয়ারম্যানদের সাথে যোগাযোগ করলে যাচাই বাছাই করে তাদেরকে প্রণোদনা দেয়া যেতে পারে বলে তিনি বলেন। তিনি আরো জানান, উপজেলায় এবছর মোট ৫ হাজার ৫শ’ হেক্টর জমিতে রবিশস্য চাষ করা হয়েছে। সার্বিকভাবে ফলনও ভালো হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Customized By BreakingNews